‘এ ট্রফি বাংলাদেশের সকল মানুষের’

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জয় করে দেশে ফিরেছেন সাবিনা খাতুনরা। বুধবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন বাংলাদেশের মেয়েরা। বিমানবন্দরে ফুলে মালা পরিয়ে দেওয়া হয় কৃতি ফুটবলারদের। ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে, কেক কেটে জয় উদযাপন করা হয়।

বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় ফুটবলার সাবিনা বলেন, ‌‘অসংখ্য, অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের এত সুন্দরভাবে বরণ করে নেওয়ার জন্য। আমরা অনেক কৃতজ্ঞ, গর্বিত। সকলকে ধন্যবাদ। এ ট্রফি বাংলাদেশের সকল মানুষের’।

বিমানবন্দরে শিরোপাজয়ী কন্যাদের জন্য অপেক্ষা করছে ফুল দিয়ে সাজানো ছাদখোলা বাস। এই বাসে করেই বাফুফে ভবনে আসবেন ফুটবলাররা।

সাফ গেমসে নারী ফুটবল চালু করেন প্রেসিডেন্ট জিয়া : ফখরুল

দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলে বিজয়ী নারী ফুটবলারদের আগমনে তাদের প্রাণঢালা অভিনন্দন জানিয়েছে বিএনপি। বিজয়ীদের দেশে ফেরার প্রাক্কালে আজ বুধবার সকালে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের পক্ষ থেকে এই অভিনন্দন জানান।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সাফ ফুটবলে আমাদের মেয়েরা অসাধারণ সম্মান বয়ে এনেছে। বহুদিন পর আমাদের দেশের জন্য একটা সুখবর তারা বয়ে নিয়ে এসেছে। এটার জন্য আমরা গর্ববোধ করছি। আজকে তারা দেশে ফিরছে। তাদের প্রাণঢালা শুভেচ্ছা আমাদের পক্ষ থেকে।

তিনি দলের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘আমাদের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে, আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে তাদের অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। তাদের পরিবার-পরিবারবর্গ যারা আছেন তাদের আমরা শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।’

 

মির্জা ফখরুল বলেন, “গতকাল আমি টেলিভিশনে স্বপ্নার মায়ের কথা শুনেছি। এই কথাটা শোনার পর আমি অত্যন্ত ব্যথিত হয়েছি। স্বপ্নার মাকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছে, আপনার মেয়ে ফুটবল খেলছে। তার জন্য আপনি ভালো খাবারদাবারের কী ব্যবস্থা করেন, ডিম-দুধ খেতে দেন? মহিলা তখন বললেন, ‘ভাতই দিতে পারি না, ডিম-দুধ দেব কোত্থেকে’?”

তিনি বলেন, “দ্যাট ইজ দ্য রিয়াল পিকচার। এটা হচ্ছে আসল চিত্র। এ দেশের ৪২ ভাগ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে। এই মেয়েটা উঠে এসেছে একেবারে দরিদ্রতম পরিবার থেকে। তার বাবা অসুস্থ, হার্টের রোগী। তার মাকে প্রশ্ন করা হয়েছে কী করেন? পেশা কী? তার মা বলেছেন, ‘পরের বাড়িতে কাজ করি। ভাতই দিতে পারি না।’ তারপরও এই দারিদ্র্যকে জয় করে এই মেয়ে আজকে এই জায়গায় পৌঁছেছে। টিম যে এই জায়গায় পৌঁছেছে এটা জন্য আমরা গর্ববোধ করছি।”

তিনি বলেন, ‘সাফ গেমস নারী ফুটবল খেলা চালু করেছিলেন প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান সাহেব। আমি পত্রিকায় দেখলাম ডানা (কামরুন নাহার ডানা), যিনি মহিলা ফেডারেশনের এক সময়ে প্রধান ছিলেন। তিনি বলছেন, প্রথম টুর্নামেন্টটা বেগম খালেদা জিয়ার সরকারের সময় অনেক বাধা-বিপত্তিকে উপেক্ষা করে শুরু হয়।’

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান উপস্থিত ছিলেন।

গত সোমবার নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে নারী সাফের ফাইনালে স্বাগতিক দেশ নেপালকে ৩-১ গোলে হারিয়ে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ান হয়। বুধবার দুপুর দেড়টায় নেপাল থেকে বিজয়ীরা দেশে ফিরেছেন।

বিডি প্রতিদিন

শাহিন আফ্রিদিকে বিশ্বকাপ না খেলার পরামর্শ দিলেন পাকিস্তানের সাবেক পেসার

হাঁটুর ইনজুরিতে পড়ে নেদারল্যান্ডস সিরিজ ও এশিয়া কাপে খেলা হয়নি পাকিস্তানের পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদির। তবে দলটির জন্য সুখবর যে, নিউজিল্যান্ডে ট্রাইন্যাশন কাপ ও  ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আসন্ন ৭ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে না পারলেও বিশ্বকাপের আগেই সম্পূর্ণ ফিট হয়ে যাবেন শাহিন।

আপাতত চোট কাটিয়ে ফেরার লক্ষ্যে লন্ডনে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া চললে ২২ বছর বয়সি এ বাঁহাতি পেসারের। সেখান থেকে আগামী ১৫ অক্টোবর সরাসরি অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন শাহিন।

কিন্তু সেরে উঠলেও শাহিনকে বিশ্বকাপে চান না পাকিস্তানের সাবেক পেসার আকিব জাভেদ। শাহিনের বিশ্বকাপে খেলা ঠিক হবে না বলে মনে করছেন তিনি। বিশ্বকাপে মাঠে নামলে ফের বড় ইনজুরিতে পড়ে ক্যারিয়ার শেষ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে শাহিনের – এমনটাই মনে করেন আকিব জাভেদ।

 

সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে আকিব বলেছেন, ‘শাহিন আফ্রিদির মতো ফাস্ট বোলার প্রতিদিন জন্মায় না। শাহিনের জন্য আমার পরামর্শ থাকবে আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে না খেলার জন্য। কারণ এই বিশ্বকাপের চেয়েও শাহিন অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।’

টি-টোয়েন্টি র‍্যাঙ্কিংয়ে জ্যোতি-সালমার উন্নতি

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে টানা দুই ম্যাচে দলের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন নিগার সুলতানা জ্যোতি। তার দারুণ ব্যাটিংয়ের পুরস্কারও মিলেছে র‍্যাঙ্কিংয়ে।

টি-টোয়েন্টিতে নারী ব্যাটারদের তালিকায় ৫ ধাপ এগিয়েছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। মেয়েদের র‍্যাঙ্কিংয়ের সাপ্তাহিক হালনাগাদ মঙ্গলবার প্রকাশ করে আইসিসি। অলরাউন্ডাদের মধ্যে সালমা খাতুনও এগিয়েছেন দুই ধাপ।

আবু ধাবিতে গত রবিবার আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৫৩ বলে ১ ছক্কা ও ১০ চারে ৬৭ রানের ইনিংস খেলেন জ্যোতি। জয়ের ভিত গড়ে দেওয়া ইনিংসে  ম্যাচ সেরার পুরস্কারও পান তিনি।

 

পরদিন স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৭৮ রানের লক্ষ্যে ৫ চারে ৩৪ রান করেন এই কিপার-ব্যাটার। টি-টোয়েন্টি ব্যাটারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে এখন ২৩ নম্বরে নিগার। বাংলাদেশের ব্যাটারদের মধ্যে তার ওপরে নেই কেউ।

পরের অবস্থানে চোটের কারণে বাছাই থেকে ছিটকে পড়া ফারজানা হক। অভিজ্ঞ এই ব্যাটার আছেন ৪৬তম স্থানে। সালমার অবস্থান ৪৯তম।

প্রথম ম্যাচে দারুণ ব্যাটিংয়ে ৭ চারে ৪০ বলে ৪৮ রানের ইনিংস খেলা শামিমা সুলতানারও উন্নতি হয়েছে। ৬ ধাপ এগিয়ে এই ওপেনার আছেন যৌথভাবে ৭২ নম্বরে।

ব্যাটারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে যথারীতি শীর্ষে অস্ট্রেলিয়ার বেথ মুনি। দুই ধাপ এগিয়ে ক্যারিয়ার সেরা দুই নম্বরে জায়গা করে নিয়েছেন ভারতের স্মৃতি মান্ধানা। এক ধাপ নেমে তিনে আরেক অস্ট্রেলিয়ান মেগ ল্যানিং।

বোলারদের তালিকায় আগের মতোই সেরা ইংল্যান্ডের সোফি এক্লেস্টোন। দুইয়ে তার সতীর্থ সারাহ গ্লেন। দক্ষিণ আফ্রিকার শাবনিম ইসমাইল আছেন তিনে।

বোলারদের মধ্যে বাংলাদেশের সেরা ১৩তম অবস্থান সালমার। আয়ারল্যান্ডকে বিপক্ষের ম্যাচে অফ স্পিনে ৩ উইকেট নেন স্রেফ ১৯ রান দিয়ে। পরে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ১৬ রান দিয়ে ধরেন এক শিকার।

নাহিদা আক্তার আছেন ৩২তম স্থানে, রুমানা আহমেদের অবস্থান ৪৩তম। ফাহিমা খাতুন দুই ধাপ পিছিয়ে ৭৫ নম্বরে। ৮ ধাপ এগিয়ে ৮২তম স্থানে জায়গা করে নিয়েছেন রিতু মনি।

অলরাউন্ডারদের র‍্যাঙ্কিংয়েও বাংলাদেশের সেরা সালমা। ৭ নম্বরে উঠে এসেছেন তিনি স্কটল্যান্ডের ক্যাথরিন ব্রাইস ও পাকিস্তানের নিদা দারকে পেছনে ফেলে। এই তালিকায় শীর্ষে নিউ জিল্যান্ডের সোফি ডিভাইন।

ভারতের কাছে হেরে বাংলাদেশের বিদায়

সাফ অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিতে ভারতের কাছে হেরে বিদায় নিয়েছে বাংলাদেশ দল। সোমবার কলম্বোর সেকোর্স স্টেডিয়ামে বাংলাদেশকে ২-১ গোলে পেছনে ফেলে ফাইনালে উঠেছে ভারত। তাদের দুটি গোলই করেছেন থাংলালসুন গ্যাংটে।

ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলেছে বাংলাদেশ। একাধিক সুযোগ তৈরি করেও ফিনিশিংয়ের অভাবে গোল পায়নি। নবম মিনিটে লং শটে লক্ষ্যভেদের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন নাজমুল হুদা ফয়সাল।

সময় গড়াতে আক্রমণের ধার বাড়ে ভারতের। ১৬তম মিনিটে প্রথম সুযোগ আসে তাদের। সতীর্থের বাড়ানো বলে হেডটা গোলমুখে রাখতে পারেননি থাংলালসুন গ্যাংটে। দুদলই কিছু সহজ সুযোগ নষ্ট করায় গোলশূন্য ব্যবধানে শেষ হয় প্রথমার্ধ।

 

দ্বিতীয়ার্ধের ৫১ মিনিটে লিড পেয়ে যায় ভারত। ডি-বক্সের বাইরে থেকে দারুণ শটে জালে বল জড়ান গ্যাংটে। পিছিয়ে পড়ে গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে বাংলাদেশ। তাতে দুর্বল হয়ে পড়ে ইমরানদের রক্ষণ। সুযোগটা কাজে লাগান গ্যাংটে।

ম্যাচের ৫৯ মিনিটে লাল-সবুজদের জালে দ্বিতীয়বার বল জড়ান ভারতীয় এ ফরোয়ার্ড। ৬১তম মিনিটে মিরাজুলকে ফাউল করায় পেনাল্টি পেয়ে যায় বাংলাদেশ। স্পট কিকে গোল করতে ভুল করেননি মিরাজুল। ম্যাচের বাকি সময়ে আর কোনো গোল না হওয়ায় সেটি যথেষ্ট হয়নি বাংলাদেশের জন্য। ফলাফল হার, টুর্নামেন্ট থেকে বিদায়!

ভারতের বিশ্বকাপ দলে নেই কেন জাদেজা?

আগামী মাসেই অস্ট্রেলিয়ায় বসবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আসর। মূল পর্বের আগে ১৬ অক্টোবর শুরু বাছাই পর্ব। সোমবার ভারতের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দল ঘোষণা করা হয়েছে। ১৫ সদস্যের সেই দলে আছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন আর হার্শাল প্যাটেল। তবে রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন দলে অবশ্য নেই তারকা অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজা। ডান হাঁটুতে অস্ত্রোপচার করে মাঠের বাইরে আছেন তিনি।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ১৫ জনের দলে রাখা হয়নি মোহাম্মদ শামিকেও। এই পেসারকে রাখা হয়েছে রিজার্ভ দলে। এশিয়া কাপে বোলারদের ব্যর্থতার পর শামিকে ফেরানোর দাবি উঠলেও নির্বাচকরা সুযোগ দিলেন না তাকে।

অস্ট্রেলিয়ায় যে ভারতীয় দলের চার ব্যাটার- রোহিত শর্মা, লোকেশ রাহুল, বিরাট কোহলি ও সূর্যকুমার যাদব। দলে উইকেটরক্ষক হিসেবে থাকছেন ঋষভ পন্থ ও দীনেশ কার্তিক।

 

অলরাউন্ডার হিসাবে ভারতীয় দলে নেওয়া হয়েছে দীপক হুডা, হার্দিক পান্ডিয়া, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, আর অক্ষর প্যাটেলকে। চোট সেরে ফের দলে ফিরেছেন যশপ্রীত বুমরাহ ও হার্শাল প্যাটেল। দলে পেসার হিসাবে আছেন ভুবনেশ্বর কুমার ও আর্শদীপ সিংহ।

ভারতের বিশ্বকাপ দল

রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), লোকেশ রাহুল (সহ-অধিনায়ক), বিরাট কোহলি, সূর্যকুমার যাদব, দীপক হুডা, ঋষভ পন্থ (উইকেট-রক্ষক), দীনেশ কার্তিক (উইকেট-রক্ষক), হার্দিক পান্ডিয়া, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, যুজবেন্দ্র চাহাল, অক্ষর পটেল, যশপ্রীত বুমরাহ, ভুবনেশ্বর কুমার, হার্শাল প্যাটেল ও আর্শদীপ সিংহ।

রিজার্ভ দল: মোহম্মদ শামি, শ্রেয়াস আয়ার, রবি বিষ্ণোই, দীপক চাহার।

চ্যাম্পিয়নরা টস নিয়ে ভাবে না, বললেন রিজওয়ান

এশিয়া কাপে সর্বোচ্চ ২৮১ রান এসেছে মোহম্মদ রিজওয়ানের ব্যাট থেকে। তবু পাকিস্তানকে এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন করতে না পেরে হতাশ এই উইকেট রক্ষক-ব্যাটার। ম্যাচের পর রিজওয়ান মেনে নিয়েছেন, যোগ্য দল হিসেবেই ফাইনালে জিতেছে শ্রীলঙ্কা।

ফাইনালে টস জিতেছে পাকিস্তান। প্রথমে বল করে শ্রীলঙ্কাকে চাপে ফেলেও কেন চ্যাম্পিয়ন হতে পারলেন না? রিজওয়ান বলেছেন, “যে দল টস নিয়ে ভাবে, আমার মতে সেই দল চ্যাম্পিয়ন নয়। যেমন এশিয়া কাপ ফাইনালে শ্রীলঙ্কা। ওরা টস নিয়ে ভাবেনি। পরে ওরা আমাদের ভুলের সুযোগ নিয়েছে। যোগ্য দল হিসেবেই শ্রীলঙ্কা চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।”

দ্রুত শ্রীলঙ্কার পাঁচ উইকেট ফেলে দেওয়ার পরেও কেন ছন্দ ধরে রাখতে পারল না পাকিস্তান? রিজওয়ান জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কা তাদের ভুলের সুযোগ নিয়ে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে। তিনি বলেন, “আমরা কয়েকটা ভুল করেছি। আমরাও মানুষ। প্রতিযোগিতায় অন্য ম্যাচগুলো আমরা ভালই খেলেছি। কিন্তু ফাইনালে শ্রীলঙ্কার কয়েকটা উইকেট দ্রুত তুলে নেওয়ার পরেও আমরা ছন্দ হারিয়ে ফেলি। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে যারা ছন্দটা একবার ধরে নেয়, তাদেরই জেতার বেশি সুযোগ থাকে। আমরা যেখানে ছন্দ নষ্ট করেছি, শ্রীলঙ্কা সেখান থেকেই ছন্দ ধরে নিয়েছে।”

 

এদিকে, শ্রীলঙ্কাকে অভিনন্দন জানিয়ে পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর মেনে নিয়েছেন, তাদের ব্যাটিং, ফিল্ডিং কিছুই ভাল হয়নি। বাবর বলেছেন, “আমরা ওদের চেপে ধরেছিলাম। তারপরেও দুর্দান্ত ব্যাটিং করে ঘুরে দাঁড়িয়েছে শ্রীলঙ্কা। উইকেট ভালই ছিল। দুবাইয়ের উইকেট যেমন হয় তেমনই। এখানে খেলতে সব সময়ই বেশ ভাল লাগে।”

বাবর মেনে নিয়েছেন তারা ফাইনালে যোগ্যতা অনুযায়ী খেলতে পারেননি। পাকিস্তান অধিনায়ক বলেছেন, “আমরা ভাল ব্যাট করতে পারিনি। নিজেদের ক্ষমতা অনুযায়ী খেলতে পারিনি। মিডল অর্ডার ইনিংসটা ভাল শেষ করতে পারেনি। যেভাবে প্রতিযোগিতা শেষ করতে চেয়েছিলাম, তা পারলাম না। কোনও কিছুই পরিকল্পনা মতো হল না। ফাইনালে আমাদের ফিল্ডিং একদমই ভাল হয়নি। তাও বেশ কিছু ইতিবাচক বিষয় নিয়েই আমরা দেশে ফিরব।”

রিজওয়ান, শাদাব খান, মোহম্মদ নওয়াজ, নাসিম শাহদের প্রশংসা করেছেন পাকিস্তান অধিনায়ক। তার মতে, কয়েকটি জায়গায় তাদের উন্নতি করতে হবে। ব্যর্থতা থেকে শিখতে হবে। ভুলের সংখ্যা যতটা সম্ভব কমিয়ে ফেলতে চান তিনি।

বিডি প্রতিদিন

মায়োর্কাকে হারিয়ে লা লিগার শীর্ষে রিয়াল

মায়োর্কার বিপক্ষে ৪-১ গোলের দারুণ এক জয় নিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ উঠে এসেছে লা লিগার শীর্ষে। এর ফলে লিগের শুরু থেকে শতভাগ জয়ের রেকর্ডটাও ধরে রাখল কোচ কার্লো অ্যানচেলত্তির শিষ্যরা।

তবে রিয়ালের জয়টা মোটেও সহজ ছিল না। খেলার শুরু থেকেই দ্বিতীয় সেরা দল হয়ে থাকা মায়োর্কা ধারার বিপরীতে এগিয়ে যায় প্রথমার্ধের ৩৫ মিনিটে। লি ক্যাং ইনের ক্রস থেকে ভেদাত মুরিকির গোলে পিছিয়ে পড়ে স্বাগতিক রিয়াল।

তবে রিয়াল মাদ্রিদ সমতা ফেরায় ম্যাচের প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার আগেই। নিজেদের অর্ধ থেকে বল নিয়ে উঠে এসে ফেদেরিকো ভালভার্দে প্রতিপক্ষ বিপদসীমার কাছে থেকে করে বসেন দারুণ এক গোল। তাতেই ১-১ স্কোরলাইন নিয়ে দুই দল যায় বিরতিতে।

তবে দ্বিতীয়ার্ধে গোলের দেখা পেতে রিয়াল সময় নেয় ৭২ মিনিট পর্যন্ত। গোলটা আসে ব্রাজিলিয়ান কানেকশন থেকে। রদ্রিগো গোয়েজের পাস থেকে গোল করেন ভিনিসিয়াস জুনিয়র। সেই রদ্রিগোর পা থেকেই আসে তৃতীয় গোলটা। যোগ করা সময়ে কর্নার থেকে ভেসে আসা বলে অ্যান্টোনিও রুডিগারের দারুণ এক ভলিতে ৪-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে রিয়াল।

এই জয়ের ফলে রিয়াল মাদ্রিদ বার্সেলোনাকে টপকে চলে এসেছে লিগের শীর্ষে। পাঁচ ম্যাচের সবকটিতে জয় নিয়ে দলটির সংগ্রহ এখন ১৫ পয়েন্ট। আর দুইয়ে থাকা বার্সেলোনার সংগ্রহ ১৩ পয়েন্ট।

বিডি প্রতিদিন

ক্রিকেটার আল-আমিনের বিরুদ্ধে স্ত্রীর আরেক মামলা

বাংলাদেশ জাতীয় দলের পেসার আল-আমিন হোসেনের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা দায়ের করেছেন তার স্ত্রী ইশরাত জাহান। বুধবার ঢাকার একটি আদালতে পারিবারিক সহিংসতার অভিযোগ তুলে ২০১০ সালের পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইনের ১৫(১)(এ)(বি)(সি)/১৬(৫)(৬) ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

শুনানির পর মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. শফিউদ্দিন অভিযোগকারীর জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এ ছাড়া অভিযোগ আমলে নিয়ে ২৭ সেপ্টেম্বর আল-আমিনকে হাজির হওয়ার জন্য তলব করেন।

সর্বশেষ মামলায় ইশরাত অভিযোগ করেছেন, গত কয়েক বছর ধরে তার স্বামী ২ সন্তানের লেখাপড়ার খরচসহ তাকে ভরণপোষণ দেননি। ৩ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে আল-আমিনের মা তাকে টেলিফোন করে বলেন, তার ছেলে দাম্পত্য জীবন চালিয়ে যাবে না তবে ২ সন্তানের শিক্ষার খরচসহ তার ভরণপোষণ দেবে। কিন্তু এরপর তাকে ডিভোর্স দিয়ে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। মামলায় প্রতিমাসে ১০ লাখ টাকা করে ভরণপোষণ দেওয়ার জন্য আদালতে আবেদন করেছেন তিনি।

 

গত ১ সেপ্টেম্বর রাজধানীর মিরপুর থানায় আল-আমিনের বিরুদ্ধে প্রথম মামলা দায়ের করেছিলেন ইশরাত জাহান। সেখানে তিনি অভিযোগ করেন, ২০ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে আল-আমিন তাকে নির্যাতন ও লাঞ্ছিত করেছেন। এ ছাড়া আল-আমিন সন্তানসহ তাকে বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য করেছে।

মঙ্গলবার নির্যাতন ও যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীর দায়ের করা মামলায় আল-আমিন আত্মসমর্পণ করার পর হাইকোর্ট তাকে ৮ সপ্তাহের আগাম জামিন মঞ্জুর করে।

যে কৌশলে ভারতকে হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা

তারকাহীন শ্রীলঙ্কার কাছে তারকাবহুল ভারতের ভরাডুবি নিশ্চয়ই কালকে অনেকের বিস্ময়ের কারণ হয়েছে। তবে কম শক্তি নিয়ে লঙ্কান সিংহরা কীভাবে মাইটি ভারতকে কুপোকাত করেছে, সেই কারণটাও খুঁজছেন অনেকে; চলছে নানা বিশ্লেষণ। তবে সোজা কথায় মোটামুটি দুই কৌশলেই ভারতকে কুপোকাত করেছে লঙ্কা।

২০২১ সাল থেকে ১১ ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে শ্রীলঙ্কার জয় মাত্র দুইটিতে। একই সময়ে পরে ব্যাট করে (দ্বিতীয় ইনিংসে) সাত ম্যাচে তারা জিতেছে, হেরেছে মাত্র চারটায়। এই এশিয়া কাপেও তারা প্রথমে ব্যাট করে আফগানিস্তানের সাথে করেছিল ১০৫ রান, হেরেছিল ৮ উইকেটে। বিপরীতে দুই ম্যাচে পরে ব্যাট করে দুইটাতেই জিতেছে লঙ্কানরা। তারা বাংলাদেশের ১৮৪ ও আফগানদের ১৭৬ রান পরে ব্যাট করে ‍খুব সহজেই টপকে গেছে।

সেই লক্ষ্য তাড়ার আত্মবিশ্বাসেই এশিয়া কাপের সুপার ফোরের ম্যাচে টস জিতেই লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকা রোহিতের ভারতকে ব্যাটে পাঠান। এরপর ১৭৪ রানের বড় টার্গেট দেয় ভারত। তবে সেই বড় লক্ষ্য তাড়া করতেও শ্রীলঙ্কার খুব একটা বেগ পেতে হয়নি।

 

কারণ শ্রীলঙ্কার হাতে ছিল দুই ইনফর্ম ব্যাটার। এক, টপ অর্ডারে কুসল মেন্ডিস ২, লোয়ার অর্ডারে স্বয়ং কাপ্তান দাসুন শানাকা। দুজনেই কালকে কার্যকরী ইনিংস খেলেছেন।

৩৭ বলে ওপেনিংয়ে নামা মেন্ডিস করেছেন ৫৭ রান। পাথুম নিশাঙ্কাকে নিয়ে গড়েছেন ৬৭ বলে ৯৭ রানের জুটি। জয়ের পথটা দুই ওপেনারই মূলত মসৃণ করেছেন। আর ভারতীয় বোলিংয়ের পরের ধাক্কাটা সামলে নিয়েছেন ভানুকা রাজাপাকসে ও ক্যাপ্টেন শানাকা, তাদের ৩৪ বলে ৬৪ রানের অপরাজিত পার্টনারশিপই জয়ের পথটা সহজ করেছে।

যদিও একটা জায়গা একটু ব্যতিক্রম, শ্রীলঙ্কার স্পিন ভাণ্ডারের চেয়ে কালকে পেসাররাই ভালো করেছেন। তবে সবশেষে ভাগ্যটাও শ্রীলঙ্কাকে কালকে দিয়েছে যোগ্য সঙ্গ।